• Home
  • Make Money Online

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল থেকে টাকা ইনকাম করবেন ? কমপ্লিট গাইড !

ইউটিউব চ্যানেল শুরু হয় একটা শখ বা ইচ্ছা থেকে ।
যত সেই ইউটিউব চ্যানেল গ্রো করতে  থাকে । তত ইউটিউব চ্যানেল থেকে টাকা ইনকাম শুরু হয় ও সেই ইউটিউব চ্যানেল থেকে ইনকাম এর পরিমান ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে।

এর আগেও আমরা বলেছি ইউটিউব চ্যানেল শুরু করতে কি কি গিয়ারস লাগেকীভাবে ইউটিউবে দ্রুত সফলতা পাবেন ? এগুলি মেনে চলুন !

আপনি যদি নতুন ইউটিউব চ্যানেল খোলার কথা ভাবেন বা একটি নতুন ইউটিউব চ্যানেল আপনার থাকে। অথচ সেটা থেকে ইনকাম শুরু হয়নি । এবং আপনার মনে প্রশ্ন আসছে বারবার- ইউটিউব চ্যানেল থেকে কিভাবে ইনকাম করা যায় বা How to make money from YouTube? 

আপনিও যদি মাঝেমাঝেই ইন্টারনেটে সার্চ করেন Kivabe YouTube channel theke taka income korbo ? বা How to make money from YouTube channel bangla guide !

তাহলে এই আর্টিকেলে আপনি একদম ভালোভাবে বুঝে যাবেন কিভাবে ইউটিউব থেকে মানি আর্ন করা বা টাকা ইনকাম করা সম্ভব হয় ।

অর্থাৎ ইউটিউব চ্যানেল থেকে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায়। তাহলে আপনিও আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আর্ন করতে পারবেন খুব সহজে !

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল থেকে টাকা ইনকাম করা যায় ? 

ইউটিউব চ্যানেল থেকে ইনকাম করার অনেক পদ্ধতি রয়েছে। তার মধ্যে আজকে বহুল প্রচলিত ও জনপ্রিয় কয়েকটি পদ্ধতি সম্পর্কে আপনাকে জানাবো !
দেখেনিন ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করার পদ্ধতি গুলি !

অ্যাডভার্টাইজমেন্ট এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করা !

অ্যাডভার্টাইজমেন্ট এর মাধ্যমে ইউটিউব চ্যানেল আর্ন করার অর্থাৎ টাকা ইনকাম করার জন্য সবথেকে প্রাথমিক বা বেসিক পদ্ধতি হল গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করা । 

আপনি যদি গুগল এডসেন্স সম্পর্কে কিছুই না জেনে থাকেন । তাহলে আপনাকে বলি এডসেন্স হল গুগলের একটি প্লাটফর্ম । 

এর সাহায্যে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে অ্যাডভার্টাইজমেন্ট দেখানো হয় ইউটিউব এর তরফ থেকে।  অর্থাৎ গুগল এর তরফ থেকে  । 

যার ফলে আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন । 

এই গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম অনেক কিছু ব্যাপার এর উপর নির্ভর করে।

কিন্তু ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করার সবথেকে প্রাথমিক পদ্ধতি হল এটাই

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করা !

ইউটিউব থেকে আর্ন করার আরেকটি জনপ্রিয় পদ্ধতি হল অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং !

আপনার যদি ভালো রকম ভিউয়ার্স থাকে বা আপনার চ্যানেল যদি আস্তে আস্তে অনেক গ্রো করে যায় ।

তাহলে আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর সাহায্যে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে আপনার যদি কোন ধারনা না থাকে । আপনি যদি না জানেন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি ( Affiliate Marketing in Bengali )। 

তাহলে আপনাকে ছোট করে বুঝিয়ে দিই।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি ?

প্রত্যেকটা জনপ্রিয় ইকমার্স সাইট থেকে শুরু করে বেশিরভাগ জনপ্রিয় ব্যান্ড প্রত্যেকের অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থাকে।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সাহায্যে আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন । এবং আপনার সেট করা লিঙ্ক থেকে যদি কেউ এই প্রোডাক্টটি কেনেন ।

তাহলে আপনি সেটা থেকে কিছু কমিশন আর্ন করতে পারবেন।

তবে একটা জিনিস বলে রাখা ভালো, যিনি আপনার লিঙ্ক থেকে প্রোডাক্ট টি কিনছেন তাকে আলাদা করে কোনো কিছু টাকা দিতে হয় না । 

যে কোম্পানির অ্যাফিলিয়েট হিসেবে আপনি কাজ করবেন তারা আপনাকে নির্দিষ্ট একটি লিংক দিয়ে দেবে । 

সেটা কে বলা হবে অ্যাফিলিয়েট লিংক । লিংকে ক্লিক করে যারা আপনার রেফার করা প্রোডাক্ট কিনবেন , তাদের কাছ থেকেই আপনি কমিশন পাবেন । 

আরও পড়ুন : ইনস্টাগ্রাম থেকে কিভাবে টাকা ইনকাম করবেন ? জেনেনিন বিস্তারিত ভাবে !

এবার বুঝতেই পারছেন । আপনার ইউজার বেস যত বেশি হবে, তত কোন নির্দিষ্ট ওয়েবসাইট থেকে বা কোন ইকমার্স প্লাটফর্ম থেকে আর্ন করার সম্ভাবনা আপনার ততই বেড়ে যাবে। 

এইভাবে অ্যাফিলিয়েট লিংক আপনার ইউটিউব চ্যানেলের বা ইউটিউব ভিডিও ডেসক্রিপশনে দিয়েও ।

আপনি মোটা অংকের ইনকাম করতে পারবেন আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে ।

চ্যানেল স্পনসর্শিপ এর মাধ্যমে ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করা !

আপনার ভিডিওর মান যদি খুবই ভালো হয় । আপনি যে বিষয়ে ভিডিও বানান সেই বিষয়ে আপনার ভিডিও যদি অত্যধিক সুবিধা প্রদান করে । 

আপনার ইউজার বেস বা সাবস্ক্রাইবার বেস যদি অনেক বেশি হয় । 

তাহলে চ্যানেল স্পন্সরশীপের মাধ্যমে আপনি উপরিউক্ত দুটো পদ্ধতির থেকেও অনেক বেশি ইনকাম করতে পারবেন । 

এবার আপনাকে বলি চ্যানেল স্পন্সরশীপ ব্যাপারটা কি ?

ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করার জন্য এক জনপ্রিয় মাধ্যম হল এই ভিডিও স্পন্সরশীপ ।

এখানে আপনি যে বিষয়ে ভিডিও বানান সেই বিষয়ক কোন কোম্পানি আপনাকে এপ্রোচ করবেন । বা আপনি তাদের এপ্রোচ করবেন।

 এবং তাদের নির্দিষ্ট প্রোডাক্ট সম্পর্কে আপনার মতামত আপনি দেবেন একটি ভিডিওর মাধ্যমে ।

যার জন্য কোম্পানি আপনাকে টাকা দেবে । সোজা কথায় এটাই হল ইউটিউব ভিডিও স্পন্সরশীপ।

আপনি যদি টেকনোলজি বিষয়ে পারদর্শী হন এবং আপনার চ্যানেল যদি টেকনোলজি বিষয়ে হয় । তাহলে এক্ষেত্রে কোন মোবাইল ফোন নির্মাতা কোম্পানি আপনাকে এপ্রোচ করতে পারে ।

এবং তাদের নির্দিষ্ট কোন প্রোডাক্ট সম্পর্কে আপনাকে বলতে বলা হতে পারে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে ।

তার জন্য কোম্পানি আপনাকে টাকা দেবে । এটাই হলো স্পন্সরশীপ ।

এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম অত্যন্তই জনপ্রিয়। 

এবার আপনাকে অবশ্যই স্পন্সরশীপের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করলে সবসময় সৎ থাকতে হবে।

ভিউয়ার দের সাথে কোনরকম চিটিং করলে আদতে আপনারই ক্ষতি হবে । 

ইউটিউব চ্যানেল যত বেশি গ্রো করবে, যত বেশি সাবস্ক্রাইবারদের সাথে আপনার সম্পর্ক ভালো হবে, ততই স্পন্সরশীপ থেকে আপনার আর্নিং আরও বাড়বে । 

যদি বেশি ভিউ আসে আপনার চ্যানেলে বা আপনি যদি সবসময় সঠিক বিষয় আপনার সাবস্ক্রাইবারদের জানান । 

তাহলে চ্যানেল স্পনসর্শিপ থেকে আর্নিং এর পরিমাণ মারাত্মক রকমের বেশিও হতে পারে ।

তবে আপনাকে অবশ্যই প্রডাক্টস সিলেকশনের ব্যাপারে সিলেক্টিভ হতে হবে । আজেবাজে প্রোডাক্ট কখনোই টাকা নিয়ে ভালো বললে চলবে না !

তবে আপনাকে অবশ্যই প্রডাক্টস ইলেকশনের ব্যাপারে সিলেক্টিভ হতে হবে । আজে বাজে প্রোডাক্ট কখনোই টাকা নিয়ে ভালো বললে চলবে না।

নিজস্ব মার্চেন্ডাইজ বিক্রি করে টাকা ইনকাম !

এরপরে ইউটিউব চ্যানেল থেকে আর্নিং নিয়ে যে পদ্ধতির ব্যাপারে বলব সেটা সবার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়।

আপনার চ্যানেল যদি অত্যন্ত রকমের বেশি গ্রো করে, চ্যানেলে কনটেন্টের কোয়ালিটি যদি খুব ভালো থাকে এবং আপনার সাবস্ক্রাইবাররা যদি আপনার ভিডিও খুব ভালোবাসেন । এবং আপনি যদি নিজেকে যদি ভালোভাবে প্রেজেন্ট করতে পারেন ।

তাহলে এই পদ্ধতিটি আপনার জন্য এই পদ্ধতিটি হলো নিজস্ব মার্চেন্ডাইজ বিক্রি করে ইউটিউব চ্যানেল থেকে টাকা ইনকাম ।

নিজস্ব মার্চেন্ডাইজ বিক্রি করে টাকা ইনকাম ব্যাপারটা আপনাকে বুঝিয়ে বলি ।

আমরা অনেক সময় খুব জনপ্রিয় ইউটিউবারদের দেখি তারা নিজস্ব ব্র্যান্ডের নানান জিনিস বিক্রি করেন তাদের ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে।

তাদের ব্র্যান্ডেড টি-শার্ট থেকে শুরু করে, মোবাইলের কভার, এমনকি জামা-প্যান্ট, হুডি ইত্যাদি সমস্ত কিছু আপনি আপনার চ্যানেলের মাধ্যমে নিজস্ব মার্চেন্ডাইজ বিক্রি করতে পারবেন । 

তবে এর জন্য অবশ্যই প্রথমে আপনার চ্যানেল একটা ভালো পজিশনে নিয়ে যেতে হবে।

আর যার জন্য প্রয়োজন ইউটিউবে আপনার চ্যানেলে প্রচুর কোয়ালিটি কনটেন্ট । 

তাই এই নিজস্ব মার্চেন্ডাইজ থেকে টাকা ইনকাম করার আগে অবশ্যই নিজের চ্যানেল কোয়ালিটির দিকে মন দিন।

এবং আপনার কনটেন্ট কে আরো হাই-কোয়ালিটির করতে চেষ্টা করুন । তবেই এটা থেকে আপনি আরও বেশি পরিমাণে সফলতা পাবেন।

সুপার চ্যাট থেকে টাকা ইনকাম !

আপনি যদি একজন গেমার হন এবং আপনার গেমিং চ্যানেল যদি থাকে। তাহলে আপনি এই পদ্ধতিটি অবলম্বন করতে পারেন ভাল ভাবেই ।

গেমিং চ্যানেল না হলেও, অন্যান্য যে কোন প্রকারের চ্যানেল থেকেও আপনি এই পদ্ধতিতে আর্ন করতে পারবেন ।

এই পদ্ধতিটি হল সুপার চ্যাটের মাধ্যমে টাকা ইনকাম।

 তবে এর জন্য আপনাকে লাইভ সেশন করতে হবে ।

আপনি যদি লাইভ সেশন করেন ইউটিউবে, তাহলে আপনার ভিউয়াররা আপনাকে সুপার চ্যাটের মাধ্যমে টাকা পাঠাতে পারেন। 

তবে অবশ্যই এক্ষেত্রেও আপনার কনটেন্ট কোয়ালিটি অনেক ভালো হতে হবে ।

চ্যানেলে ভিউ যথেষ্ট পরিমাণে আসতে হবে এবং যথেষ্ট পরিমাণে পরিচিত হলেই আপনি এই চ্যানেল সুপার চ্যাট থেকে প্রচন্ড রকম ইনকাম করতে পারবেন ।

আপনি যদি পপুলার গেমারদের লাইভ স্ট্রিম দেখেন তাহলে এই বিষয় সম্পর্কে আপনি ভালোভাবে বুঝতে পারবেন ।

তারা এই সুপার চ্যাটের মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণ টাকা ইনকাম করেন তাদের ইউটিউব চ্যানেল থেকে ।

তাই এই সুপার চ্যাট হল ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করার এক জনপ্রিয় পদ্ধতি ।

এই সমস্ত পদ্ধতি গুলোর সাহায্যে আপনি ইউটিউব থেকে বেশি পরিমানে আয় করতে পারবেন ।

তাই অবশ্যই ইউটিউব থেকে যদি আপনি বেশি পরিমাণে আয় করতে চান । তাহলে আপনার সর্ব প্রথম কাজ হল কোয়ালিটি কনটেন্ট তৈরি করা । 

তাই কোয়ালিটি কন্টেন্টের তৈরির দিকে মন দিন। আর চ্যানেল গ্রো করার চেষ্টা করুন। তাহলেই এই সমস্ত পদ্ধতি মেনে আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে বেশি পরিমানে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আমাদের সমস্ত আপডেট সরাসরি পেতে TelegramFacebook , Twitter Instagram ও YouTube -এ তে আমাদের সঙ্গে থাকুন, শ্রেষ্ঠ থাকুন!

Click Here to Leave a Comment Below 0 comments

Leave a Reply: